Home অন্যান্য নির্বাচিত খবর কঠিন সময়ের সফল কান্ডারী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, বর্তমান বাংলাদেশের অস্তিত্বের...

কঠিন সময়ের সফল কান্ডারী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, বর্তমান বাংলাদেশের অস্তিত্বের প্রতীক

আলম রায়হান:

সংগ্রামমুখর ও সফল জীবন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তবে তাঁর এই বর্ণাঢ্য জীবন কুসুমাস্তীর্ণ নয়, বরং কণ্টকাকীর্ণ। নানান সংকট মোকাবিলা করে তিনি অগ্রসর হয়েছেন।ছিলো জীবনের ঝুকি। অন্তত ২০ বার তাঁকে হত্যার অপচেষ্টা করা হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়েও তিনি অসীম সাহসে তার লক্ষ্য অর্জনে থেকেছেন অবিচল। কঠিন সময়ের  সফল কান্ডারী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির কাণ্ডারি হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন তার মেধা, সাহস ও সততার কারণে। বর্তমান বাংলাদেশের অস্তিত্বের প্রতীক বলা হয় তাকে।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নৃশংস হত্যাকান্ডের সময় বিদেশে থাকতার কারণে বোন শেখ রেহানাসহ প্রানে বেঁচে যান শেখ হাসিনা। এর পর শুরু হয় অনিশ্চি প্রবাস জীবন। ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে দলীয় প্রধানের কঠিন দায়িত্ব নেন শেখ হাসিনা। এর পর থেকে গত ৩৯ বছর ধরে নিজ রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও আপসহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশের অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনীতির মূল স্রোতধারার প্রধান নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন শেখ হাসিনা। কেবল তাই নয়, বিশ্বের সমস্যা ও সংকট নিরসনের পাশাপাশি শোষিত-নিপীড়িত মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখায় তিনি হয়ে ওঠেন বিশ্বনেতা। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ও রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন তিনি। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং জনগনের দাবি আদায় করতে গিয়ে সামরিক স্বৈরশাসনামলেও বেশ কয়েকবার তাঁকে কারা নির্যাতন ভোগ ও গৃহবন্দি থাকতে হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস তিনি গৃহবন্দি থেকেছেন।
আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ চার মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দলটি। ওই বছরের ১২ জুনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে ২৩ জুন সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক নির্বাচনে চার-তৃতীয়াংশ আসনে বিশাল বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠিত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ের পর ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরপর দ্বিতীয় মেয়াদের মহাজোট সরকার গঠিত হয়।
সর্বশেষ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে ভূমিধস বিজয় অর্জনের পর ৭ জানুয়ারি টানা তৃতীয় মেয়াদে শপথ নেয় তার নেতৃত্বাধীন সরকার। এ নিয়ে মোট চারবার সরকারপ্রধানের দায়িত্বে এলেন শেখ হাসিনা। এ ছাড়া ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৯১ সালের পঞ্চম এবং ২০০১ সালের অষ্টম সংসদে অর্থাৎ মোট তিন দফা বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে শিক্ষাজীবন থেকেই প্রত্যক্ষ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ১৯৬৫ সালে তিনি ঢাকার আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন বকশীবাজারের পূর্বতন ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমান বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। কলেজে পড়ার সময় তিনি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে সেখান থেকে ১৯৭৩ সালে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন শেখ হাসিনা।
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং অন্য রাজনৈতিক জোট ও দলগুলো স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের মাধ্যমে ১৯৯০ সালে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে বিজয়ী হয়। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে বিজয় অর্জন করে এবং নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় প্রধান বিরোধী দলের নেতা হিসেবে তার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলোর সমন্বয়ে প্রথমে ১৪ দলীয় জোট এবং পরে মহাঐক্যজোট গড়ে ওঠে। ১৪ দল ও মহাঐক্যজোটের তীব্র আন্দোলনের মুখে অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ২২ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচন করার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।
২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা জারি করে ড. ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এলে একই বছরের ১৬ জুলাই চাঁদাবাজিসহ দুর্নীতির মামলায় গ্রেপ্তার হন শেখ হাসিনা। সংসদ ভবন চত্বরের বিশেষ কারাগারে তিনি দীর্ঘ প্রায় ১১ মাস বন্দি ছিলেন।
গণতন্ত্র এবং দেশের মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি রাষ্ট্র পরিচালনায়ও ব্যাপক সাফল্যের পরিচয় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৯৯৬-২০০১ সালে তার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি ও গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি তার সরকারের অন্যতম সাফল্য। তার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার টানা ১১ বছরে দেশের বিশাল অগ্রগতি ও বিস্ময়কর উন্নতি অর্জনে সক্ষম হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি, একাত্তরের ঘাতক যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য শেষ করা, সংবিধান সংশোধনের মধ্য দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি ও সমুদ্রবক্ষে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে ব্লু ইকোনমির নতুন দিগন্ত উন্মোচন, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট সফল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে মহাকাশ জয়, সাবমেরিন যুগে বাংলাদেশের প্রবেশ, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন, কর্ণফুলী টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, নতুন নতুন উড়াল সেতু, মহাসড়কগুলো ফোর লেনে উন্নীত করা, এলএনজি টার্মিনাল স্থাপন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, মাথাপিছু আয় দুই হাজার ডলারে উন্নীত, গত দু’বছরে দেশের প্রবৃদ্ধি সর্বোচ্চ ৮ দশমিক ২ শতাংশে উন্নীতকরণ, দারিদ্র্যের হার কমিয়ে ২০ ভাগে নামিয়ে আনা, বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ২২ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়ে যাওয়া, ৯৪ ভাগ মানুষকে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনা, যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়ন, সাক্ষরতার হার ৭৩ দশমিক ৯ শতাংশে উন্নীত করা, বছরের প্রথম দিন প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যে নতুন বই পৌঁছে দেওয়া, মাদ্রাসা শিক্ষাকে মূলধারার শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা ও স্বীকৃতি দান, মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, প্রতিটি জেলায় একটি করে সরকারি/বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ, নারী নীতি প্রণয়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ, ফোর-জি মোবাইল প্রযুক্তির ব্যবহার চালুসহ অসংখ্য ক্ষেত্রে কালোত্তীর্ণ সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ। বর্তমান সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত ও মধ্যম আয়ের আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য পূরণে নিয়োজিত।
এই অঞ্চলে গণতন্ত্র, শান্তি ও মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং নারী শিক্ষার বিস্তার, শিশু মৃত্যুর হার হ্রাস ও দারিদ্র্য বিমোচনের সংগ্রামে অসামান্য ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে দেশি-বিদেশি বেশ কিছু পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা। রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে ব্রিটিশ মিডিয়া চ্যালেন ফোর তাকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ এবং যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাময়িকী ফোর্বস ‘লেডি অব ঢাকা’ উপাধিতে ভূষিত করেছে। দাতব্য সংগঠন ‘গ্লোবাল হোপ কোয়ালিশনের’ পরিচালনা পর্ষদ শেখ হাসিনাকে ‘স্পেশাল রিকগনিশন ফর আউটস্ট্যান্ডিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর আগে পরিবেশ সংরক্ষণে অসামান্য অবদানের জন্য ২০১৫ সালে জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি।
এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভ্যাকসিন হিরো-২০১৯, সাউথ-সাউথ ভিশনারি পুরস্কার-২০১৪, শান্তি বৃক্ষ-২০১৪, জাতিসংঘ পুরস্কার-২০১৩ ও ২০১০, রোটারি শান্তি পুরস্কার-২০১৩, গোভি পুরস্কার-২০১২, সাউথ-সাউথ পুরস্কার-২০১১, ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পুরস্কার-২০১০, পার্ল এস. বার্ক পুরস্কার-২০০০, সিইআরইএস মেডেল-১৯৯৯, এম কে গান্ধী পুরস্কার-১৯৯৮, মাদার তেরেসা শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮, ইউনেস্কোর ফেলিক্স হোফুয়েট-বোয়েগনি শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮ প্রভৃতি পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের পর পুলিশপ্রধানের শিবের গীতের উপযোগ থাকে?

বাস মালিকরা যতই বলুক তারা ভাড়া বৃদ্ধি করবে না, কিন্তু দেখা যায় মালিকরা ভাড়া বেশি নিয়েই থাকে। শাজাহান খান বলেন, ওই যে সারা বছর...

চাঁদার দাবিতে ঢাকা মেডিকেল ক্যান্টিন ভাঙচুর চালিয়েছে পরিচ্ছন্নতা কর্মী

দখিনের সময় ডেস্ক: ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নতুন ভবনের নিচতলায় ‘একতা স্ন্যাকস অ্যান্ড স্যুপ কর্নার’ নামে এক ক্যান্টিনে চাঁদার দাবিতে জসিম উদ্দিন নামে হাসপাতালের...

ছয় বিভাগে তাপপ্রবাহ, আরও বাড়ার আভাস

দখিনের সময় ডেস্ক: দেশের ছয় বিভাগের ওপর দিয়ে তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। যা আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আরও বিস্তারিত লাভ করবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। শুক্রবার...

সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করার আহবান প্রধানমন্ত্রীর

দখিনের সময় ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আসুন, নতুন বছরে অতীতের সব ব্যর্থতা-দুঃখ-গ্লানি পেছনে ফেলে সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণের লক্ষ্যে একযোগে কাজ করি। পহেলা বৈশাখকে সামনে...

Recent Comments