Home মতামত ভারতের পথে নেপাল, লকডাউনের ‘লক’ খুলে গেছে বাংলাদেশে

ভারতের পথে নেপাল, লকডাউনের ‘লক’ খুলে গেছে বাংলাদেশে

করেনা মহামারীর আগ্রাসন ভারতেকে লন্ডভন্ড করেদিয়েছে। এ তান্ডব আব্যাহত। শ্মশানে ঠাই নেই, গণচিতায়ও লাইন। আপেক্ষমাস লাশ খায় কুকুরে। অক্সিঞ্জের আভাবে রোগী মারা যায় আইসিউতে, ভয়ে পালায় ডাক্তার-নার্স। ভারতে সে এক ভয়াবহ অবস্থা। যেনো হ-র-র সিনেমা।

বেশ আগে থেকেই লাগাতরভাবে সর্ককর্ত করা হচ্ছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়াতে পারে প্রতিবেশীসহ অন্যান্য দেশেও। এই সতর্কবার্তা আমলে নিয়ে সুদূর অস্ট্রেলিয়া সতর্ক হয়েছে। বলেছে, ভারত থেকে সে দেশে যাওয়া যাবে না, অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক হলেও না। গেলে পাচ বছরের জেল, সঙ্গে জরিমানা!

ভারতের করোনা পরিস্থিতি পুরো আমলে যারা নেয়নি, অথবা নেবার সুযোগ সীমিত তাদের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ হচ্ছে বাংলাদেশ ও নেপাল। ফলে এরইা মধ্যে শুরু হয়েছে নেপালের খেসারত দেবার পালা। ভারতের মতো বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে হিমালয় কন্যা নেপাল। দেশটির করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। সেখানে দৈনিক সংক্রমণে নতুন নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। দৈনিক সংক্রমণ দশ হাজার ছুইছুই।  সংকট সামাল দিতে প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি সেনাবাহিনীকে জরুরি স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থার আহ্বান জানিয়েছেন। এদেক সংকট মোকাবিলায় আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চেয়েছে নেপাল সরকার।  রাজধানী কাঠমান্ডুসহ দেশের উত্তর-পশ্চিম ও পশ্চিমাঞ্চলে সংক্রমণের মাত্রা অনেক বেড়েছে। এই এলাকাগুলোতে সংক্রমণের হার ৪৭ শতাংশ। এই পরিস্থিতিতে দেশটিতে একদিকে দেখা দিয়েছে টিকার সংকট অন্যদিকে হাসপাতালগুলো রোগীর চাপ বেড়েছে। হাসপাতাল ও ফার্মেসিগুলো মানুষের দীর্ঘ লাইন। প্রধান শহরগুলোতে লকডাউনের কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও ওষুধ সরবরাহে প্রভাব পড়েছে। ফেডারেশন অব রেড ক্রস ও রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক আলেক্সান্ডার ম্যাথিউ বলেছেন, ভাইরাস দ্রুত ছড়াচ্ছে। আমাদের এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে এবং নেপালের এই মানব বিপর্যয় ঠেকাতে আমাদের দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।

ভারতের মতো প্রতিবেশি নেপপাল করোনার গ্রাসে পড়ার পরও আমাদের হুশ হয়েছে বলে মনে হচ্ছে না। যদিও আমাদেরে দেশে লকডাউন চলছে। তবে অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে, লকডাউনের ‘লক’ খুলেগেছে। আন্তজেলা বাস-যাত্রীবাহী ট্রেন-লঞ্চ ছাড়া সবই চলছে আগের মতোই।  যদিও যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ। কিন্তু তাতে কী? মালবাহী ট্রেনে যাচ্ছে যাত্রী।জরুরি মালামাল পরিবহনে রেলওয়ের বিভিন্ন রুটে কিছু পার্সেল ট্রেন চালু রয়েছে। মালামাল ছাড়া এসব ট্রেনে যাত্রী বহন নিষিদ্ধ থাকলেও বর্তমানে সব পার্সেল ট্রেনে অবাধে যাত্রী বহন করছেন রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মচারী।

আর মানা হচ্ছে না ন্যূনতম স্বাস্থ্যবিধি। ভাবখানা যেনো, কিসের স্বাস্থ্য বিধি, কিসের কি!মানুষ বেপড়োয়া। যেনো পঙ্গপাল। ঈদের বাজারে ভীড়। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই চলছে গণপরিবহন। রাস্তায় জটলা। চায়ের দোকানে আড্ডা। কারও কারও মুখে মাস্ক আছে, বেশিরভাগ মানুষের নেই। যাদের আছে তাদের বেশির ভাগই শোভাপায় থুতনিতে। দেথে মনে হয়, দেশে করোনা মহামারি বলে কিছু নেই। যদিও দৃশ্যমান করোনা মহামারীতে মৃত্যুর চলমান মিছিল। কিন্তু মানুষ কি কারনেই যেনো বেপরোয়া।

এই হলো ভিতরের অবস্থা্। সীমান্তের দিকে কিন্তু আশংকা আরো বেশি। আমাদের তিনদিকে ভারত। এক দিকে সাগরের জলরাশি। প্রতিবেশী ও বন্ধু ভারত করোনায় বিপর্যস্থ। সেই কেরোনা আবার ভয়াবহ প্রকৃতির। যে কারণে সুদূরে থেকেও আস্ট্রেলিয়া সতর্ক হয়েছে। কিন্তু বোধগম কারনেই আমরা তা পারিনি। ভারতের প্রতিবেশি নেপালও হয়তো পারিনি। এই না পারার চরম খেসারত শুরু হছেয়ে নেপালে!

বাংলাদেশও ভারতের প্রতিবেশি। আর ভয়ানক করোনা ভাইরাস খাবলে ধরেছে পুরো ভারতকে। এ অবস্থায় সার্বজনীন শংকার প্রশ্ন, করোনাকালে আমাদের দেশে যা চলছে তাতে পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিস্থিতি ভয়াবহ দিকে যেতে পারে। করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশের জন্য নতুন হুমকি। তিনবার রূপ পাল্টাতে সক্ষম করোনার এ নতুন ধরন, ছড়ায় অতি দ্রুত। সেই সঙ্গে এটি তিন গুণ বেশি শক্তিশালীও। এ অবস্থায় বাংলাদেশে এর সংক্রমণ রোধে আপাতত ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু এটি কতটা কার্যকর তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। এদিকে পশ্চিমবঙ্গে যে ট্রিপল মিউটেটেড ভাইরাস এসেছে, সেটা বাংলাদেশে এলে পরিস্থিতি কী হবে-সেটা নিয়ে অনেকে গবেষকই শংকিত।

এদিকে  ভারত ফেরত বাংলাদেশীদের কোয়ারেন্টাইনে হিমশিম খাচ্ছে যশোর প্রশাসন। যশোর ও বেনাপোলের সকল আবাসিক হোটেল এখন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার।  এর সংখ্যা অন্তত ২৯টি। এ হোটেলগুলো এবং বক্ষব্যাধি হাসপাতাল ও অন্যান্য স্থানে কোয়ারেন্টাইনে ভারত ফেরত বাংলাদেশীরা  সংখ্যা সহস্রাধিক। এছাড়া, যশোরের আশপাশের চার জেলা, সাতক্ষীরা, খুলনা, ঝিনাইদহ ও নড়াইলের হোটেলগুলোও কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রূপান্তর করা হয়েছে। ভারতে করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া যাত্রীরা বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশে ফিরছেন। অনেকের দেহে মিলছে করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্ট। এরপরও স্বাস্থ্য বিভাগের মুখপাত্র বলছেন, আরো কিছু দিন সময় লাগবে। হায় আমরা কোথায় যাচ্ছি!

1 COMMENT

  1. বাঙালি সাহসী জাতি।অতি ক্ষুদ্র এ করোনাতে তাদের কোনও ভয় নেই। তাই কোন বিধি নিষেধ তোয়াক্কা না করেই অতি স্বাভাবিক চলন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় প্রেসিডেন্ট রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিহত

দখিনের সময় ডেস্ক: হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আব্দুল্লাহিয়ান। ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। যদিও এ...

কে ‍এই এব্রাহিম রাইসি

দখিনের সময় ডেস্ক: ইরানে প্রেসিডেন্ট এব্রাহিম রাইসি দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লা আলি খামেনির ঘনিষ্ঠ দৃঢ়চেতা ধর্মীয় নেতা। তিনি দেশটির শীর্ষ বিচারপতি এবং তার মতাদর্শ অতি-রক্ষণশীল।...

ইরানের প্রেসিডেন্টের ভাগ্যে কী ঘটেছে তা এখনো অজানা

দখিনের সময় ডেস্ক: হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিখোঁজ হওয়া ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির ভাগ্যে কী ঘটেছে তা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হওয়ার পর যদি...

রাজনীতিতে রনো ভাইরা আর নেই

ছাত্রজীবনে রাজনৈতিক বিশ্বাস ও সম্পৃক্ততার সূত্রে বাম রাজনীতিকদের বিষয়ে বিশেষ শ্রদ্ধাবোধ লালন করে আসছি। এ ধারায় আশি-একাশি সালে পেশাগত জীবনের সূচনালগ্নে বাম নেতাদের সঙ্গে...

Recent Comments