Home আন্তর্জাতিক ইরানের সেকাল-একাল, নেপথ্যে আমেরিকা-ব্রিটেনের তেলের লোভ

ইরানের সেকাল-একাল, নেপথ্যে আমেরিকা-ব্রিটেনের তেলের লোভ

দখিনের সময় ডেস্ক:
রেজা শাহের ইরান, ১৯২৪ এর । রেজা শাহ উদার, সেক্যুলার লোক। তবে তিনি কোন ডেমোক্রেটিক লিডার ছিলেন না, ছিলৈন রাজা। সেক্যুলার রাজা। সেক্যুলারিজম থাকলে কী তাহলে রাজতন্ত্র সাপোর্টযোগ্য হয়ে যায়? তিনি ধর্ম পালনে অত্যধিক কড়াকড়ি জারি করছিলেন।
হিজাব, বোরকা, দাঁড়ি রাখা সব বে-আইনি। ধর্মীয় উৎসব পালনে বিধিনিষেধ। কিন্তু তিনি ধীরে ধীরে কঠোরতর হতে তারক সরাইয়া দেয়া হয়। তারে দেয়া হয় নির্বাসন। রাজা শব্দটার সাথে নির্বাসন জিনিসটা যায় ভালো। আমরা আগে বাংলা ছবির রাজাদের নির্বাসনে যাইতে দেখতাম। তিনি ১৯৪৪ সালে গত হন।
১৯৪১ থেকে ১৯৫৩ পর্যন্ত ইরানে ডেমোক্রেটিক সেক্যুলারিজম ছিল। যেটাকে বলা যায় ভালো সেক্যুলারিজম। যেহেতু ডেমোক্রেসি ছিল। ১৯৫১ সালে মোসাদ্দদেগ ছিলেন গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী। তবে তিনি ডেমোক্র্যাটিক সেক্যুলার হলেও ছিলেন এন্টি কলোনিয়াল। নিজের দেশের ভালো মন্দ বুঝতেন।
১৯১৩ থেকে ইরানের সব তেল ইন্ড্রাস্ট্রি ছিল এংলো -পারসিয়ান অয়েল কোম্পানির অধীনে। ইউরোপ থেকে আইনে পিইচডি করা মোসাদ্দেক এর সরকার এই তেল ইন্ড্রাস্ট্রিকে জাতীয় করণ করার সিদ্ধান্ত নিল। মাথায় বাজ পড়ল ইংল্যান্ডের।  ব্রিটিশ সিক্রেট ইন্টিলিজেন্স সার্ভিস (ব্রিটিশ গোয়েন্দাদের দল) আমেরিকান গোয়েন্দাদের দল সিআইএকে বলল, চলো আমরা একসাথে কাজ করি। আমরা আমরাই তো।
সিআইএ মোসাদ্দেগকে সেনাবাহিনী দ্বারা উৎখাতের নাম দিল অপারেশন এজাক্স। তারা কাজ শুরু করে দিল। রাজনীতিবিদ, বড় আর্মি অফিসারদের টাকা দিয়ে কেনা হল। এই বস্তু দিয়া কেনা যায় না এমন জিনিস কমই আছে। টাকা ছড়ানোর সাথে সাথে তাদের প্রোপাগান্ডাও চালাল ঠিকমত।
তারপর এল সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। সিআইএ প্ল্যানিং এবং এস্কিকিউশন দুইটাতেই অংশ নিল। মোসাদ্দেগকে গ্রেফতার করে তিন বছরের জেল দেয়া হল। তারপর রাখা হল নিজগৃহে নজরবন্দী অবস্থায়। জনগণের একটা সমর্থন ছিল তার প্রতি। তাই তিনি মারা গেলে তার বাড়িতেই নিরবে দাফন করা হয় গণবিস্ফোরনের আশংকায়। এখন কেউ বলতে পারেন সিআইএ খুব ভালো। তারা ব্রিটিশদের সাহায্য করার জন্য একটা ক্যু ডি’টা করে ফেলল। একটা ক্যু করা কী কম বড় কথা!
সিআইএ’র উদ্দেশ্য ছিল ব্রিটেনের নিতে থাকা ইরানের তেলে ভাগ বসানো। এই ক্যু দ্বারা মোসাদ্দেগকে সরানোর পর ইরানে আমেরিকান পেট্রোলিয়াম কোম্পানিগুলো কাজ শুরু করে দেয়। ফ্রান্সের এবং ডাচ পেট্রোলিয়াম কোম্পানিও কাজ শুরু করে।
রেজা শাহ পুলিশদের নির্দেশ দিয়েছিলেন হিজাব পরে বের হলে বা মাথায় কাপড় দিলে পুলিশ যেন জোর করে তা খুলে ফেলে। জোর করে হিজাব পরানো আর জোর করে হিজাব খোলার মাঝে কি পার্থক্য?

রেজা শাহ পাহলভীর আমলের ইরান

এরপর রেজা শাহের পুত্র রেজা শাহ পহলবী রাজা হিসেবে শাসন করতে লাগলেন। দেশের সম্পদ বিদেশীরা নিয়ে যাবে এমন ইচ্ছা তারও ছিল না। তিনি তেল ইন্ড্রাস্ট্রি জাতীয়করণের ক্ষেত্রে মোসাদ্দেকের মতকে সমর্থনই করতেন। তার হাবভাব দেখে ব্রিটেন তারে বলল, তোমার জান বড় না তেল বড়?
পহলবীর কাছে অবশ্যই জান বড় ছিল। তাই তিনি আমেরিকা-ব্রিটেনের বিরুদ্ধে যাওয়ার সাহস পাননি।  হয়ে গেলেন একজন প্রভুভক্ত একনায়ক। তিনি ডেমোক্রেসিকে উষ্টা মেরে বিতারণ করলেন। শুরু করলেন টোটালিটারিয়ান সেক্যুলারিজম। পোস্ট রেভ্যুলোশনারী ফ্রান্স এবং ক্লাসিক্যাল আমেরিকান রাজনৈতিক চিন্তা থেকে ধর্ম এবং রাষ্ট্রকে আলাদা করার চিন্তা তার মাথায় ছিল।
দেশে স্বৈরশাসক। এর মাঝে মুসলিম দেশ। যে দেশের শক্ত ইতিহাস ও ঐতিহ্য আছে। সেসব ভুলে গিয়ে তিনি ভীনদেশের তরিকামত আগানো শুরু করলেন। যার ফলাফল হিসেবে রাইজ করতে থাকল ইসলামি মৌলবাদ। দেশে দূর্নীতি হলে, মানবাধিকার লংঘিত হলে সাধারণ মানুষ কিন্তু ঠিকই বুঝতে পারে। অসহ্য পর্যায়ে চলে গেলে যেকোন আদর্শের ছায়াতলে গিয়ে তাদের বিদ্রোহ করার সম্ভাবনা থাকে। মানুষ বিদ্রোহী হতে লাগল।
শাহ এই ইসলামি মৌলবাদের উত্থানের পিছনে দায়ী করতে লাগলেন ব্রিটিশদের। ব্রিটিশদের সাথে সম্পর্ক খারাপ করে তিনি আমেরিকা ও ফ্রান্সের সাথে রিলেশন ভালো করলেন। কিন্তু ইসলামিজম ও র‍্যাডিক্যাল ইসলামিজমের উত্থান ঠেকানো গেল না।
১৯৭৯ সালে আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনির নেতৃত্বে হল বিপ্লব। যাকে বলা হয় ইসলামি বিপ্লব। বিভিন্ন কম্যুনিস্ট দলও এতে সমর্থন দিয়েছিল। আমেরিকার সমর্থনপুষ্ট আমাদের একনায়ক শাহের শাসনকাল ছিল দূর্নীতিতে পূর্ন, সামাজিক ন্যায়বিচারহীন, ব্রুটাল এবং অপ্রেসিভ। লংঘিত হচ্ছিল মানবাধিকার। কিন্তু পশ্চিমাইজেশন ছিল, ছিল কঠোর সেক্যুলারিজম। এর প্রতিক্রিয়াতেই মানুষ ইসলামি বিপ্লবে সমর্থন দেয়। এবং তুলনামূলক একটি নন-ভায়োলেন্ট বিপ্লবের মাধ্যমে শাহের পতন ঘটে। ইরান ইসলামী প্রজাতন্ত্র হয়।
ইরানের রাজতন্ত্র বিলোপ করা হয়। শাহকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়। শাহ আনোয়ার সাদাতের মিশরে এসাইলাম নিয়ে ছিলেন। তিনি আর দেশে আসেন নি। ক্লিওপেট্রার দেশে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যু পরবর্তী শেষ ক্রিয়ায় মিশরের আনোয়ার সাদাত, আমেরিকার রিচার্ড নিক্সন, গ্রীসের দ্বিতীয় কন্সটানটাইন যোগ দিয়েছিলেন। তাকে মিশরের জাতীয় সম্মানের সাথে সমাহীত করা হয়।
ইরানের বর্তমান অবস্থার জন্য দায়ী করা হয় আমেরিকা-ব্রিটেনের তেলের লোভকে। গণতান্ত্রিক ভাবে নির্বাচিত মোসাদ্দেক ক্ষমতায় থাকলে নিশ্চয়ই এখন ইরান ইসলামিক রিপাবলিক অব ইরান হত না। জোর করে ধর্মবিরোধী নীতি প্রণয়ন, জোর করে সেক্যুলারিজম চাপিয়ে দেয়ার ফল হিসেবে দেখা গেল ইরান ইসলামিক রিপাবলিক হয়ে গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

বরিশালে মধ্যরাতে ডাকাত আতঙ্ক, পুলিশ বলছে গুজব

দখিনের সময় ডেস্ক বরিশালের বিভিন্ন এলাকার মসজিদ থেকে মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টা থেকে সাড়ে ৩টা পর্যন্ত ডাকাত আসার বিষয়ে সতর্ক করে মাইকিং করা হয়। তবে...

ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ে ছাড়া শারীরিক সম্পর্ক নিষিদ্ধ

দখিনের সময় ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ে ছাড়া যৌন সম্পর্ক স্থাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই আইন অমান্য করলে এক বছর কারাদণ্ড বা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার...

১০ ডিসেম্বর নিয়ে ১৫ দেশের বিবৃতি

দখিনের সময় ডেস্ক: দশ ডিসেম্বর নিয়ে যৌথভাবে বিবৃতি প্রকাশ করেছে আমেরিকাসহ ১৫টি দেশ। ১০ ডিসেম্বর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস। এ উপলক্ষে বিবৃতি দেওয়া দেশগুলো নিজেদের বাংলাদেশের...

সাবেক স্ত্রীর সঙ্গে একান্ত মুহূর্তের ভিডিও দিয়ে চিকিৎসককে ব্ল্যাকমেইল

  দখিনের সময় ডেস্ক: সাবেক স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর কিছু ভিডিও বর্তমান স্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) এক চিকিৎসককে। সাবেক...

Recent Comments