Home লাইফস্টাইল মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণ ও করনীয়

মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণ ও করনীয়

দখিনের সময় ডেস্ক:
মস্তিষ্কের ধমনীর একটি বেলুনিং বা ফুলে যাওয়া, যা মস্তিষ্ক ও মাথার খুলির মধ্যবর্তী স্থানে ফেটে রক্তপাত। হঠাৎ এ অবস্থা হলে দ্রুত চিকিৎসা প্রয়োজন। সাবএরাকনয়েড হেমোরেজের লক্ষণে অ্যাম্বুলেন্স কল করে রোগীকে হাসপাতালে নেওয়া ভালো।
সাবএরাকনয়েড হেমোরেজ হলো এক ধরনের রক্তক্ষরণ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মাথায় আঘাতের কারণে এ সমস্যা হয়। মাথার ট্রমা ছাড়া রোগীর ক্ষেত্রে এ রোগ সাধারণত মস্তিষ্কের অ্যানিউরিজমের কারণে হয়। লক্ষণ : অবস্থা প্রকট হলে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা যায়। হঠাৎ গুরুতর মাথাব্যথা এ রোগের গুরুত্বপূর্ণ উপসর্গ। কখনো কখনো মানুষ রক্তক্ষরণের আগে মাথার মধ্যে একটি হালকা ব্যথা অনুভব করেন। রোগটির আরও উপসর্গ হলো:-
ঘাড়ব্যথা : সারা শরীরে অসাড়তা অনুভব, কাঁধে ব্যথা, আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা, দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া, বমি বমি ভাব, খিঁচুনি ও বিভ্রান্তি হওয়া, বিরক্তি বোধ ইত্যাদি। তবে সাবএয়াকনয়েড হেমোরেজের লক্ষণগুলো হঠাৎ দেখা দেয় এবং রোগী দ্রুত জ্ঞান হারাতে পারেন।
যাদের বেশি হয় : যে কোনো বয়সীর হতে পারে। ধূমপান ও উচ্চ রক্তচাপ অ্যানিউরিজমের ঝুঁকি বাড়ায়। অবৈধ বিনোদনমূলক ওষুধ ব্যবহার শুধু অ্যানিউরিজম নয়, সাবএরাকনয়েড রক্তক্ষরণেও ব্যাপক অবদান রাখতে পারে।
ঝুঁকির কারণ : সাবএরাকনয়েড হেমোরেজ স্বতঃস্ফূর্তভাবে বা মাথায় আঘাতের কারণে ঘটতে পারে। যদি স্বতঃস্ফূর্ত হয়, তবে এটি মস্তিষ্কের অ্যানিউরিজমের সঙ্গে সম্পর্কিত হতে পারে, যা মস্তিষ্কের ধমনির মধ্যে অস্বাভাবিকতা। যখন একটি অ্যানিউরিজম বিস্ফোরিত হয়, তখন দ্রুত রক্তপাত হয়, জমাট রক্ত তৈরি করে। এটি নারীদের মধ্যে যারা উচ্চ রক্তচাপযুক্ত এবং যেসব নারী-পুরুষ ধূমপান করেন, তাদের বেশি হয়। কখনো কখনো মস্তিষ্কে আঘাত প্রাপ্তের কারণেও এ সমস্যা হতে পারে। ফলে সাবএয়াকনয়েড হেমোরেজ হতে পারে। রক্ত পাতলা করার যন্ত্রের ব্যবহার বা ধমনির বিকৃতি থেকে রক্তপাতে সাবারাকনোয়েড হতে পারে।
চিকিৎসা : একটি ট্রান্সক্র্যানিয়াল আলট্রাসাউন্ড, যা ডাক্তারকে মস্তিষ্কের ধমনিতে রক্তপ্রবাহ শনাক্ত করতে সাহায্য করতে পারে। ঈঞ, গজ, এনজিওগ্রাফি, ঈবৎবনৎধষ অহমরড়মৎধস-এর প্রয়োজন হয়। মস্তিষ্কে রক্তপ্রবাহ শনাক্তের জন্য এক্স-রে ও ইনজেকশনযুক্ত রঞ্জক ব্যবহার করা হয়। রোগীর জীবন বাঁচানোর পাশাপাশি মস্তিষ্কের ক্ষতির আশঙ্কা ও মাত্রা কমাতে প্রাথমিক চিকিৎসা গুরুত্বপূর্ণ। রক্তপাতের কারণ চিহ্নিত করার পাশাপাশি চিকিৎসা করা প্রয়োজন। যেহেতু একই অ্যানিউরিজম থেকে নতুন রক্তপাত প্রায়ই চিকিৎসা ছাড়াই ঘটতে পারে। কিপ করার জন্য বা অ্যানিউরিজম বন্ধ করতে এবং ভবিষ্যতে রক্তপাত বন্ধ করতে অস্ত্রোপচার করা হয়। অপারেশন মাথার খুলি কেটে করা হয়। তা ছাড়া এনিউরিজম কয়েলিং করা যেতে পারে। এছাড়াও কিছু ওষুধ সেবনের প্রয়োজন হতে পারে।
পরামর্শ : এ রোগ থেকে দূরে থাকতে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করুন। খিঁচুনি প্রতিরোধ করুন। তীব্র মাথাব্যথা উপশম করুন। কিছু ক্ষেত্রে চিকিৎসার পরও জটিল ঝুঁকিতে থাকতে পারেন। তবে সময়মতো চিকিৎসা নিলে ঝুঁকিমুক্ত থাকা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

উন্নত প্রযুক্তি সমৃদ্ধ আঙুলের রিং আনছে স্যামসাং, থাকছে যেসব ফিচার

দখিনের সময় ডেস্ক: বছরের প্রথম ‘গ্যালাক্সি আনপ্যাকড’ ইভেন্টে নতুন গ্যালাক্সি এআই প্রযুক্তি এবং গ্যালাক্সি এস২৪ স্মার্টফোন সিরিজের ঘোষণা করেছে স্যামসাং। গতকাল (১৭ জানুয়ারি) আয়োজিত ইভেন্টটির...

অন্যের চার্জার দিয়ে ফোন চার্জ দিয়ে নিজের যে ক্ষতি করছেন

দখিনের সময় ডেস্ক: মোবাইল ফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অন্যতম অনুষঙ্গ। সবার হাতে হাতেই এখন মোবাইল ফোন। তবে ফোন আলাদা হলেও চার্জারের ক্ষেত্রে অনেকেই চিন্তা করেন...

আইফোনে পাসকোড ব্যবহারে সতর্কতার পরামর্শ

দখিনের সময় ডেস্ক: স্মার্টফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অন্যতম অনুষঙ্গ। বর্তমানে আইফোনের জনপ্রিয়তাও বেশ। প্রয়োজনীয় প্রিয় ফোনটি চুরি হলে বা হারিয়ে গেলে হতাশ হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক।...

আদা বেশি খাওয়ার অপকারিতা

দখিনের সময় ডেস্ক: আদার অনেক উপকারিতার কথা জেনেছেন নিশ্চয়ই। সর্দি-কাশি সারানো থেকে বমি বমিভাব দূর, নানা উপকারে লাগে এই ভেষজ। আবার আমাদের প্রতিদিনের রান্নায়ও ব্যবহার...

Recent Comments